Sahre Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

রংপুরের জয়রথ থামাল


২৫ নভেম্বর ২০১৬ শুক্রবার, ০৯:৪৩  পিএম

শেয়ার বিজনেস24.কম


রংপুরের জয়রথ থামাল

১০ দিনের বিশ্রাম পেয়েছিল মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম। কিন্তু ১০ দিনের বিশ্রামেও স্পোর্টিং উইকেট পাওয়া গেল না! শুক্রবার দুপুরে রাজশাহী কিংস ও রংপুর রাইডার্সের ম্যাচে বড় স্কোর হলেও স্পোর্টিং উইকেটের অভাব অনুভূত হচ্ছিল! টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে রাজশাহী কিংস ৫ উইকেটে ১৬২ রান সংগ্রহ করে। জবাবে রংপুর রাইডার্স ৫ উইকেটে ১৫০ রানের বেশি করতে পারেনি। তিন ম্যাচ পর রংপুর হারল ১২ রানে।

ব্যাটিংয়ের শুরুতেই বল পড়ে লো হয়ে যাচ্ছিল। বল লো হওয়ায় দুইবার বেঁচে গিয়েছিলেন সাব্বির। কিন্তু তৃতীয়বার পারেননি। সানীর বলে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে স্ট্যাম্পড হন ৩১ রানে। এর আগে ২৪ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৩১ রানের ইনিংসটি সাজান সাব্বির। সাব্বিরের আগে ৪ রানে গাজীর বলে এলবিডাব্লিউরশিকার হন ‍মুমিনুল হক। ৫১ রানে সাব্বির বিদায়ের পর ৯২ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারায় রাজশাহী। সাজঘরে ফিরেন জুনায়েদ সিদ্দীক (২৩), সামিত পাটেল (১৭) ও মেহেদী হাসান মিরাজ (৬)। এরপর ম্যাচের দৃশ্যপট পাল্টে দেন রাজশাহীর অধিনায়ক স্যামি ও উমর আকমল। দুজন ৩৭ বলে ৭০ রান তুলে দলীয় রানকে চূড়ায় নিয়ে যান। দুজনই শেষ দিকে ঝড় তুলেন মিরপুরে। ১৭ ওভার শেষে তাদের রান ছিল ১০৭। শেষ ৩ ওভারে দুই হার্ডহিটারে ব্যাট থেকে আসে ৫৫ রান। ১৮তম ওভারে ১৭, ১৯তম ওভারে ১৫ ও ২০তম ওভারে ২৩ রান তুলেন রাজশাহীর দুই তারকা। আগের ৬ ম্যাচে দুজন ভালো করতে পারেনি। কিন্তু আজ দুজনই দলের প্রয়োজনে দায়িত্বশীল ইনিংস উপহার দেন। স্যামি ১৮ বলে ৩ চার ও ৪ ছক্কায় ৪৪ এবং আকমল ৩০ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৩৩ রান করেন।

 
বল হাতে রংপুরের হয়ে সর্বোচ্চ ২টি উইকেট নেন লিয়াম ডসন। এ ম্যাচে আফ্রিদির অভাব অনুভব করেছে রংপুর। ব্যক্তিগত কারণে আফ্রিদি ছুটি নিয়ে দেশে ফিরেছেন।

১৬৩ রানের জবাবে খেলতে নেমে রাজশাহীর বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে হাত খুলে রান তুলতে পারেনি রংপুরের ব্যাটসম্যানরা। পাওয়ার প্লেতে দলের রান ছিল মাত্র ২৫। সপ্তম ওভারে রংপুর শিবিরে প্রথম আঘাত করেন নাজমুল ইসলাম অপু। আর্ম বলে ক্রস খেলতে গিয়ে বোল্ড হন আফগান ওপেনার (১৮)। ১০ ওভারে রংপুরের রান ছিল ১ উইকেটে ৬১ রান। শেষ ১০ ওভারে জয়ের জন্য তাদের প্রয়োজন ছিল ১০২ রান। সে লক্ষ্যে রংপুরের ব্যাটসম্যানরা দারুণভাবে ফিরে আসলেও জয়ের জন্য ১২ রানের আক্ষেপে পুড়তে হয় তাদেরকে। আফিদ্রির পরিবর্তে সুযোগ পাওয়া নাসির ২৭ রান তুলে বড় ইনিংসের ইঙ্গিত দিলেও তার ইনিংস রান আউটে কাটা পড়ে।

ওপেনিং থেকে নেমে চারে নামা সৌম্য আজও ফ্লপ। অপুর বলে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে বোল্ড সৌম্য (৮)। এরপর এক ওভার পর পর আউট হন আনোয়ার আলী (৫), লিয়াম ডসন (১০)। এক প্রান্ত থেকে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন মোহাম্মদ মিথুন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার ৩৬ বলে ৬৪ রানের ইনিংস দলের পরাজয়ের ব্যবধান কমিয়েছে মাত্র। ৩ চার ও ৪ ছক্কায় নিজের ইনিংসটি সাজান উইকেট রক্ষক এ ব্যাটসম্যান।

উইকেট হারালেও দারুণ লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিয়েছিল রংপুর। শেষ ১৮ বলে তাদের ৪৪ রানের প্রয়োজন ছিল। ফরহাদ রেজার করা ১৮তম ওভারে ১৬ রান তুলে নেয় তারা। কিন্তু ১৯তম ওভারে রাজশাহীকে ম্যাচে ফিরিয়ে আনেন মোহাম্মদ সামি। তার ৬ বলে মাত্র ৩ রান স্কোরবোর্ডে যোগ করতে পারে রংপুর। শেষ ওভারে ২৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিং করে মাত্র ১২ রান তুলতে পারে রংপুর। বল হাতে স্পিনার অপু ১৯ রানে ২ উইকেট নেন। ১টি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ সামি ও সামিত পাটেল।

ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন রাজশাহীর অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: