Runner Automobiles
Sea Pearl Beach Resort & SPA Ltd
Share Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

ভিএফএস থ্রেডের প্লেসমেন্টধারীদের অপেক্ষা করতে হবে সাড়ে ৬ বছর!


১১ জুন ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৩:০৬  পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক


ভিএফএস থ্রেডের প্লেসমেন্টধারীদের অপেক্ষা করতে হবে সাড়ে ৬ বছর!

শেয়ারবাজারে গত কয়েক মাসের পতনে আলোচনায় উঠে আসে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) পূর্ব মূলধন বৃদ্ধিজনিত শেয়ার বা প্লেসমেন্ট শেয়ার ইস্যু। যে শেয়ারের মাধ্যমে বাজার ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে এমন অভিযোগে লক-ইন (বিক্রয়ে নিষেধাজ্ঞা) এর মেয়াদ বাড়ানোর দাবি উঠে। এ নিয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পক্ষে চলমান লক-ইন এর ১ বছরের মেয়াদ অপরিবর্তিত রেখে প্রসপেক্টাস প্রকাশের দিনের পরিবর্তে লেনদেন শুরুর দিন থেকে গণনা করার প্রস্তাব করা হয়। তবে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) প্লেসমেন্ট শেয়ারে লক-ইন ৩ বছর করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অথচ ১ বছরের লক-ইনেই প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রয়যোগ্য হওয়ার জন্য গড়ে প্রায় আড়াই বছর অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এরসঙ্গে লক-ইন এর মেয়াদ আরও ২ বছর বাড়ানো হলে, সেটাসাড়ে ৪ বছরে পৌছাবে।

বিএসইসির সাবেক চেয়ারম্যান ড. এবি মির্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ডিএসইর পক্ষ থেকে প্লেসমেন্ট শেয়ারে লক-ইন এর মেয়াদ ১ বছর রেখে যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, সেটাকে যৌক্তিক বলে মনে হচ্ছে। এমতাবস্থায় লক-ইনের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে কমিশনের বিশ্লেষণ করা দরকার। এক্ষেত্রে স্টক এক্সচেঞ্জ, ইস্যু ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে।

তিনি বলেন, প্লেসমেন্ট শেয়ারে লক-ইনের বিষয়ে ২টি দিক আছে। আমাদের দেশের যেকোন কোম্পানির লেনদেনের শুরুতে শেয়ার দর অনেক বেশি হারে বেড়ে যায়। এক্ষেত্রে লক-ইনের মেয়াদ কম হলে প্লেসমেন্ট ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিতে পারে। অন্যদিকে লক-ইন এর মেয়াদ বেশি হলে আবার ভালো কোম্পানি শেয়ারবাজারে আসতে নিরুৎসাহিত হবে।

বিএসইসির সাবেক কমিশনার আরিফ খান বলেন, প্লেসমেন্ট শেয়ারে লক-ইন ১ বছর থাকাটাই ভালো মনে হচ্ছে। অন্যথায় ক্যাপিটাল রেইজিং হবে না। এখন বাংলাদেশে এসব ব্যাপারে অপব্যবহার করা হয়। সমস্যাতো এখানেই। যে কারণে ভালো কাজ করা যায় না।

দেখা গেছে, গত ৫ বছরে ৬৪টি কোম্পানি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে। এরমধ্যে ৪৩টি কোম্পানি থেকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) পূর্ব প্লেসমেন্ট শেয়ার ইস্যু করা হয়েছে। যেসব শেয়ার সেকেন্ডারি মার্কেটে বিক্রি উপযোগি হতে গড়ে ২.৬৫ বছর সময় লেগেছে।

ওই সময়ে প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রিযোগ্য বা লক-ইন মুক্ত হতে সবচেয়ে বেশি সময় লাগবে ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ের। এ কোম্পানিটির প্লেসমেন্ট শেয়ারধারীদেরকে ৬ বছর ৬ মাস অপেক্ষা করতে হবে। এরপরের অবস্থানে থাকা সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালসে লাগবে ৫ বছর। এছাড়া ইন্ট্র্যাকো রিফুয়েলিং স্টেশনে ৪ বছর ১ মাস এবং নিউ লাইন ক্লোথিংস, রানার অটোমোবাইলস ও বসুন্ধরা পেপার মিলসে ৪ বছর করে লক-ইন থাকবে।

এদিকে সবচেয়ে কম সময়ে প্লেসমেন্ট শেয়ার লক-ইন মুক্ত হয়েছে এএফসি অ্যাগ্রো বায়োটেকে। এ কোম্পানিটির প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রয়যোগ্য হয়েছে ১ বছর ২ মাসে। এছাড়া মোজাফ্ফর হোসাইন স্পিনিং মিলস, ন্যাশনাল ফিড মিল ও হা-ওয়েল টেক্সটাইলের ১ বছর ৫ মাসে এবং ফার কেমিক্যালের ১ বছর ৬ মাসে প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রয়যোগ্য হয়েছে।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: