JAC EnergyPac Power
Crystal Life Insurance
Share Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

পুঁজিবাজারে থাকছে না ফ্লোর প্রাইস


১৮ মে ২০২১ মঙ্গলবার, ০১:০৭  পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ার বিজনেস24.কম


পুঁজিবাজারে থাকছে না ফ্লোর প্রাইস

৬৬ কোম্পানির লেনদেনের চিত্র পর্যালোচনা করে পুঁজিবাজারে শেয়ারের সর্বনিম্ন শেয়ার দর বা ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার করে নেয়ার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। তবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি এখনও।

গত বছর করোনা সংক্রমণের পর মূল্যপতন ঠেকাতে এই ফ্লোর প্রাইস ঘোষণা করা হয়েছিল। প্রায় এক বছর পর গত ৭ এপ্রিল এর মধ্যে থেকে ৬৬টি কোম্পানির এই সর্বনিম্ন দর তুলে নেয়া হয়।

একটি নির্দিষ্ট অংকের নিচে নামা সম্ভব ছিল না বলে কোম্পানিগুলো শেয়ার দর ধরে রাখতে পারলেও সেগুলোর লেনদেন হচ্ছিল না বললেই চলে।

ফ্লোর প্রত্যাহারের পর প্রথম কার্যদিবসে বেশিরভাগ কোম্পানিই একদিনে সর্বোচ্চ পরিমাণ (শতকরা ১০ শতাংশ) দর হারানোর পর বিএসইসি জানায়, এই ৬৬ কোম্পানির দর দিনে কমতে পারবে সর্বোচ্চ দুই শতাংশ, কিন্তু বাড়তে পারবে ১০ শতাংশ। এর পরে দুই শতাংশ হারেই দাম কমতে থাকে বেশিরভাগ কোম্পানির।

তবে কিছু দিনের মধ্যেই দেখা যায় উল্টো চিত্র। দাম বাড়তে থাকে কোম্পানিগুলোর। এক পর্যায়ে বেশিরভাগ কোম্পানির ক্ষেত্রে ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহারের দিন যত দাম ছিল, তার চেয়ে ছাড়িয়ে যায় দাম।

বেশ কিছু কোম্পানি দর হারলেও এদের বেশিরভাগের দাম কমেছে খুবই কম।

আর যে লাভ হয়েছে, সেটি হলো, দীর্ঘ দিন লেনদেন না হওয়ার কারণে যে টাকা আটকে ছিল, সেটি আবার বিনিয়োগ হতে থাকে।

বিএসইসি কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘এক বছর আগে যে উদ্দেশ্যে পুঁজিবাজারে ফ্লোর প্রাইস দেয়া হয়েছিল সেটি খুবই কার্যকর হয়েছে। এবং তখন ফ্লোর প্রাইস দেয়ার কারণে বিনিয়োগকারীদের আস্থাও বেড়েছিল। এক বছর পর পুঁজিবাজারে যে অবস্থায় ফিরেছে তাতে সেই আস্থার জায়গাটি অনেক শক্ত হয়েছে। ফলে এখন মনে হয় ফ্লোর প্রাইসের আর প্রয়োজন নেই।’

তাহলে কবে প্রত্যাহার হচ্ছে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রথম পর্যায়ে ৬৬টি কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস বাতিল করেছি। তিনটি ক্যাটাগরিতে তা করা হয়েছিল। প্রথম ক্যাটাগরি হিসাবে যেসব কোম্পানির শেয়ার দর ৫০ টাকার নীচে সেগুলোর বাতিল করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিগুলোরও ফ্লোর প্রাইস বাতিল করা হবে।’

ফ্লোর প্রাইস দেয়ার সময় বলা হয়েছিল, এমন সময় তা প্রত্যাহার করা হবে, যখন বিনিয়োগকারীরা এর প্রভাব বুঝবেই না। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে ফ্লোর প্রত্যাহারে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হয় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে।

পরে বিএসইসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, পুঁজিবাজার বিষয়ক বৈশ্বিক জোট ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব সিকিউরিটিজ কমিশন-আইওএসসিও এর সদস্য বাংলাদেশ। সেই জোট এই সিদ্ধান্তকে বাজারে হস্তক্ষেপ হিসেবে দেখছে। আর এ কারণে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে র‌্যাংকিং কমে যাবে।

এক আলোচনায় কমিশনের চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল- ইসলাম বলেন, আমরা যদি মার্কেটকে প্রভাবিত করি, কারসাজি করি তাহলে আইওএসসিওর সদস্য হিসেবে আমাদের অবস্থান খারাপ হবে। একটি ফ্লোর প্রাইস থাকার পর আরেকটা ফ্লোর প্রাইস ম্যানিপুলেট করা আমাদের জন্য ভয়াবহ হবে। সে জন্য আমরা এখন বাজারকে ফ্রি ফ্লোর দিতে চাই। মার্কেটই মার্কেটের অবস্থান নিয়ে যাবে।

কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ফ্লোর প্রাইস পুঁজিবাজারের কোনো অংশ না। ফ্লোর দিয়ে স্বল্প সময়ে পুঁজিবাজারে স্থিতিশীল রাখা গেলেও দীর্ঘ সময়ের জন্য রাখা ঠিক নয়। এখন পুঁজিবাজার যে অবস্থায় আছে তাতে বিকল্প কোনো কিছু দিয়ে শেয়ার দর ধরে রাখারও প্রয়োজন হবে না।

যে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার করা হয়েছে তার মধ্যে পিপলস লিজিং এর লেনদেন স্থগিত আছে। বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেডের লেনদেন হওয়ার ইতিহাস নেই বললেই চলে।

বাকিগুলোর মধ্যে ২৪ কার্যদিবসে অন্তত ৩৭টি কোম্পানির শেয়ার দর উঠে এসেছে ফ্লোর প্রাইসের উপরে।

কমতে দেখা গেছে ২৭টির দাম।

গত বছর করোনা সংক্রমণ শুরু হলে সব শেয়ারের সর্বনিম্ন দাম বেঁধে দেয়া হয়। এর মধ্যে ৬৬টির সর্বনিম্ন দাম প্রত্যাহার হয় গত ৭ এপ্রিল
যেসব কোম্পানির শেয়ার দর এখনও ফ্লোর প্রাইস অতিক্রম করতে পারেনি, তার বেশিরভাগের শেয়ার দর গত তিন চার কার্যদিবসে বেড়েছে।

শতকরা হিসেবে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মেট্রো স্পিনিং মিলস লিমিটেডের। এই কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস ছিল ৮ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা পয়সা। শতকরা হিসেবে দাম বেড়েছে ৫৩ শতাংশ।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কাট্টালী টেক্সটাইলের দর। এর ফ্লোর প্রাইস ছিল ৯ টাকা ৩০ পয়সা। প্রায় ৫০ শতাংশ বেড়ে সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৪ টাকা ১০ পয়সা।

প্রাইম টেক্সটাইলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৫ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা ৭০ পয়সা।

স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪০ টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪৮ টাকা পয়সা।

রূপালী ব্যাংকের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২৪ টাকা ৪০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২৯ টাকা।

এসস্কয়ার নিট কম্পোটিজ লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২১ টাকা ৯০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২৬ টাকা ৯০ পয়সা।

ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪০ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪৫ টাকা ৫০ পয়সা।

আইপিডিসি ফিন্যান্স লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২২ টাকা ৬০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২৬ টাকা।

ফিনিক্স ফিনান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ফ্লোর প্রাইস ছিল সাত টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৮ টাকা ৭০ পয়সা।

ফিনিক্স ফিনান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২২ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার এর দাম দাঁড়িয়েছে ২৪ টাকা ৮০ পয়সা।

এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৭ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৯ টাকা ৩০ পয়সা।

বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৬ টাকা ২০ পয়সা। সোমবার লেনদেন দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা।

আর এন স্পিনিং মিলসের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৩ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪ টাকা ৭০ পয়সা।

এডভান্ট ফার্মা লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২২ টাকা ৮০ পয়সা। দর কমে ৪ মে হয়েছিল ১৮ টাকা। সোমবার দর দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা ৭০ পয়সা।

এএফসি এগ্রো বায়োটেক লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৭ টাকা। সোমবার কোম্পানি শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৬ টাকা ৭০ পয়সায়।

আইএফআইএল ইসলামী মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান ফ্লোর প্রাইস ছিল ৬ টাকা ২০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৬ টাকা ৩০ পয়সা।

আরগন ডেনিম স্যুয়েটারের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৯ টাকা ২০ পয়সা। সোমবার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৯ টাকা ৭০ পয়সা।

বেঙ্গল উন্ডশন থার্মোপ্লাস্টিস ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৭ টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা পয়সা।

বিচ হ্যাচারির ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৩ টাকা ৬০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৭০ পয়সা।

সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যাল ফ্লোর প্রাইস ছিল ১২ টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৪০ পয়সায়।

কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২০ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২০ টাকা ৫০ পয়সা।

ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৬ টাকা ৯০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৭ টাকা ৪০ পয়সা।

ডেসকোর ফ্লোর প্রাইস ছিল ৩৪ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৩৫ টাকা ৫০ পয়সা।

দেশবন্ধু পলিমার লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১০ টাকা ৪০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ৫০ পয়সা।

ইভিন্স টেক্সটাইলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৮ টাকা ২০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৮ টাকা ৮০ পয়সা।

গ্লোবাল হ্যাভি ক্যামিকেল লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৩১ টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৩১ টাকা ৫০ পয়সা।

হামিদ ফেব্রিক্স লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৫ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৯০ পয়সা।

প্যাসিফিক ডেনিম লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৮ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১০ টাকা ২০ পয়সা।

সাফকো স্পিনিং ফ্লোর প্রাইস ছিল ১১ টাকা ২০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৩০ পয়সা।

জাহিন স্পিনিং মিলসের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৬ টাকা ৩০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৭ টাকা ৩০ পয়সা।

রিং সাইন টেক্সটাইলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৬ টাকা ৪০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৬ টাকা ৭০ পয়সা।

রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলসের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৭ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৯ টাকা ৮০ পয়সায়।

সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৪ টাকা ৬০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৫ টাকা ৫০ পয়সা।

কুইন সাউথ টেক্সটাইলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২৪ টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২৫ টাকা ৭০ পয়সা।

শাসা ডেনিমের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২১ টাকা ৬০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা ৪০ পয়সা।

অলেম্পিক একসেসরিসের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৬ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৭ টাকা ৮০ পয়সা।

নাভানা সিএনজি লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৩৩ টাকা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৩৫ টাকা ২০ পয়সা।

সবচেয়ে বেশি কমেছে এমএল ড্রাইং লিমিটেডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৫০ টাকা। রোববার দাম ছিল ৩৪ টাকা ৫০ পয়সা। এই কোম্পানিটি ৩০ শতাংশের বেশি দাম হারিয়েছে।

সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২১ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা ১০ পয়সা।

সোনারগাঁও টেক্সটাইলও অনেক দর হারিয়েছে। এর ফ্লোর প্রাইস ছিল ২৪ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২০ টাকা ৪০ পয়সা।

আরএসআরএম স্টিল মিলসের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২২ টাকা ৯০ পয়সা। সোমবার দাম কমে দাঁড়িয়েছে ১৯ টাকা ৮০ পয়সা।

ওয়াইমেক্স ইলেকট্রোডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২৪ টাকা ৩০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৯ টাকা ৮০ পয়সা।

কেপিসিএলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪৫ টাকা ৩০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৩৯ টাকা ১০ পয়সা।


ফ্লোর প্রাইস তুলে দেয়ার পর ২৭টির দাম কমেছে। তবে এর মধ্যে বেশিরভাগের দাম ফ্লোরের কাছাকাছি।

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ফ্লোর প্রাইস ২৪ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২১ টাকা ৪০ পয়সা।

আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২৬ টাকা ২০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২৪ টাকা ৬০ পয়সায়।

ফার ক্যামিকেলের প্রাইস ছিল ৯ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৯ টাকা ৪০ পয়সা।

গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রোর ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৬ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৫ টাকা ৪০ পয়সা।

ইন্দোবাংলা ফার্মাসিউটিক্যালের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৯ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা ৬০ পয়সা।

খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৭ টাকা ৬০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৭০ পয়সা।

নাহী অ্যালুমিনিয়ামের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪৭ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪২ টাকা ১০ পয়সা।

সায়হাম কটনের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৬ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৫ টাকা ১০ পয়সা।

শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৫ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৭০ পয়সা।

প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪৮ টাকা ৯০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪৬ টাকা ১০ পয়সা।

সায়হাম টেক্সটাইলের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২৪ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২০ টাকা ৯০ পয়সা।

উত্তরা ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪৩ টাকা ৬০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৩৯ টাকা।

ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১১ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১০ টাকা ৮০ পয়সা।

উসমানিয়া গ্লাস শিটের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪৪ টাকা ৮০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪২ টাকা ৮০ পয়সা।

সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৪৮ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪৭ টাকা ৫০ পয়সা।

ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৩৯ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৩৩ টাকা ৬০ পয়সা।

সিলভা ফার্মার ফ্লোর প্রাইস ছিল ১৮ টাকা ৩০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা ৯০ পয়সা।

দুলামিয়া কটনের ফ্লোর প্রাইস ৪৮ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৪৫ টাকা ৪০ পয়সা।

ভিএফএস থ্রেড ডাইংয়ের ফ্লোর প্রাইস ছিল ২২ টাকা ৫০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা ১০ পয়সা।

নূরানী ডাইংয়ের ফ্লোর প্রাইস ছিল ৭ টাকা ৭০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ৭ টাকা ৬০ পয়সা।

ইয়াকিন পলিমারের ফ্লোর প্রাইস ছিল ১১ টাকা ১০ পয়সা। সোমবার দাম দাঁড়িয়েছে ১০ টাকা ৯০ পয়সা।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: