JAC EnergyPac Power
dominage
Share Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

ঝুঁকিমুক্ত পিই সত্বেও ব্যাংকের শেয়ারে প্রভাব নেই


১৭ অক্টোবর ২০২০ শনিবার, ০৬:০৩  পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ার বিজনেস24.কম


ঝুঁকিমুক্ত পিই সত্বেও ব্যাংকের শেয়ারে প্রভাব নেই

শেয়ারবাজারে চলমান পরিস্থিতিতে সব থেকে বেশি অবহেলিত অবস্থায় রয়েছে ব্যাংকগুলোর শেয়ার। অথচ ব্যাংকের শেয়ারগুলো পুঁজিবাজারে প্রভাব বিস্তার করেছিল একসময়। ব্যাংক খাতের ওপরই নির্ভর করতো বাজারের উত্থান-পতন। কিন্তু খেলাপি ঋণ, পরিচালকদের অনৈতিক কার্যক্রমসহ ব্যাংক খাত সম্পর্কে একের পর এক নেতিবাচক তথ্য বেরিয়ে আসায় ব্যাংকের প্রতি বিনিয়োগকারীদের অস্থায় ভাটা পড়েছে। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বেশিরভাগ ব্যাংকের শেয়ারের দামে।

এ কারণে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) ১৩-এর ওপরে থাকলেও ব্যাংক খাতের পিই রয়েছে ৬ দশমিক ৯৫ পয়েন্টে। গত সাড়ে চার মাসে শেয়ারবাজারে বড় উত্থান হলেও ব্যাংকের শেয়ার দামে তার খুব একটা প্রভাব পড়েনি। কারণ চার মাস আগেও ব্যাংক খাতের পিই ৬ দশমিক ৭৯ পয়েন্টে ছিল।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, মহামারি করোনার প্রকোপের কারণে টানা ৬৬ দিন বন্ধ থাকার পর গত ৩১ মে দেশের শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হয়। লেনদেন শুরুর পর প্রথমদিকে সূচক কিছুটা কমলেও জুলাই থেকে বড় ধরনের ঊর্ধ্বমুখী ধারা দেখা দেয়।

জুলাইয়ের শুরু থেকেই প্রায় প্রতিদিন বাড়তে থাকে মূল্য সূচক। সেই সঙ্গে বাড়তে থাকে লেনদেনের গতিও। এতে ২ জুলাই তিন হাজার ৯৮৬ পয়েন্টে থাকা ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক দেখতে দেখতে ১৬ সেপ্টেম্বর পাঁচ হাজার ১১৬ পয়েন্টে উঠে যায়। অর্থাৎ দেড় মাসে ডিএসইর প্রধান সূচক বাড়ে এক হাজার ১৩০ পয়েন্ট।

সূচকের এই বড় উত্থানের পাশাপাশি লেনদেনেরও বড় উত্থান হয়। ৫০ কোটি টাকার ঘরে নেমে যাওয়া ডিএসইর গড় লেনদেন হাজার কোটি টাকায় উঠে আসে। তবে গত দুই সপ্তাহ ধরে বাজারে কিছুটা নিম্নমুখী ধারা দেখা যাচ্ছে। এতে সাড়ে ১৩-এর ওপরে উঠে যাওয়া মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) গত সপ্তাহ শেষে ১৩ দশমিক শূন্য ৫ পয়েন্টে নেমে গেছে।

এদিকে ব্যাংকের তলানীতে পড়ে থাকার মধ্যে বীমা খাতের বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দামে বড় উত্থান হয়েছে। ফলে বীমা খাতের পিই রেশিও বেড়েছে। সাড়ে চার মাস আগে ১২ পয়েন্টে থাকা বীমা খাতের পিই এখন ১৯ দশমিক শূন্য ৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এ সময়ের মধ্যে বেশিরভাগ বীমা কোম্পানির শেয়ার দাম বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে।

শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ঝুঁকি মূল্যায়নের অন্যতম হাতিয়ার মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও)। যে প্রতিষ্ঠানের পিই যত কম, ওই প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ ঝুঁকি ততো কম। সাধারণত যে সব প্রতিষ্ঠানের পিই ১০-১৫ এর মধ্যে থাকে সেই প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ অনেকটাই ঝুঁকি মুক্ত।

ব্যাংকের পাশাপাশি কম পিইতে রয়েছে বিদ্যুৎ ও জ্বালানী, খাদ্য, টেলিযোগাযোগ এবং সেবা ও আবাসন খাত। তবে এসব খাতের পিই এককভাবে ১০-এর ওপরে রয়েছে।

এর মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর ১২ দশমিক ২৭ পয়েন্ট, টেলিযোগাযোগের ১৩ দশমিক ২৬ পয়েন্টে, খাদ্যের ১৩ দশমিক ৪৭ পয়েন্ট এবং সেবা ও আবাসনের পিই ১৩ দশমিক ৮৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

পিই ১৫- এর ওপরে থাকা খাতগুলোর মধ্যে প্রকৌশলের ১৪ দশমিক ৮৩, বস্ত্রের ১৫ দশমিক ৯, চামড়ার ১৫ দশমিক ৯৯, তথ্য প্রযুক্তির ১৬ দশমিক ২৮, ওষুধ ও রসায়নের ১৯ দশমিক ৭১, বিবিধের ২৩ দশমকি ৫৮ এবং সিরামিকের ২৩ দশমিক ৩৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

আর পিই সব থেকে বেশি থাকা খাতগুলোর মধ্যে- সিমেন্টে ২৬ দশমিক ৯৪, আর্থিক খাতের ২৯ দশমিক ৪১, ভ্রমণ ও অবকাশের ৩০ দশমিক ৯৩, পাটের ৩৭ দশমিক ২৬ এবং কাগজের ৪৬ দশমিক ১৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: