Sahre Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

ঘুরে আসুন মিয়ানমারে প্যাগোডায়


০৪ জুন ২০১৬ শনিবার, ০৩:১৭  এএম

শেয়ার বিজনেস24.কম


ঘুরে আসুন মিয়ানমারে প্যাগোডায়

 

আমাদের পাশে দেশ মিয়ানমার। রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক অনেক দিক দিয়ে সংযুক্ত দেশটি আমাদের সঙ্গে। ভ্রমণের জন্য কিন্তু চমৎকার হতে পারে দেশটি। বিভিন্ন রকম প্যাগোডা সমৃদ্ধ ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যেও সমৃদ্ধ মিয়ানমার। ইয়াংগুন তো যাবেনই। আসুন জানা যাক, দেশটি ভ্রমণে গেলে আর কী কী দেখতে পারবেন।

বাগন
মিয়ানমারের প্রথম রাজবংশের রাজধানী এটি। ১০৪৪ সালে রাজা অন্বর্থ নির্মাণ করেন এটি। এটি মান্দালায় থেকে ১৯৩ কিলোমিটার দক্ষিণে। এখানে ৪২ বর্গকিলোমিটার মরুভূমির এলাকা জুড়ে ২ হাজারেরও বেশি মন্দির এবং মঠ আছে। এটি আয়ারওয়াদি নদীর তীরে অবস্থিত। এখানকার সব লাল ইট ও ধর্মীয় নিদর্শন ১১ থেকে ১৩ শতকে নির্মিত।

মান্দালয়
মিয়ানমারের শেষ রাজকীয় রাজধানী হলো, মান্দালয়। এটি অবস্থিত ইয়াঙ্গুনের আয়ারওয়াদি নদী এবং সান প্লাটিউ এর মাঝামাঝি। রাজ প্রাসাদের জ্যামিতিক গঠন অবাক করবে আপনাকে। ৮ কিলোমিটার লম্বা প্রাসাদ সবার পছন্দের। এছাড়া আছে অনেক প্যাগোডা, আছে মন্দির, মঠ যা তুলে ধরছে সেই সময়ের স্থাপত্য শিল্পকে।

ইনলে লেক
৫ কিলোমিটার লম্বা একটি খাল আশপাশের গ্রাম প্লাবিত করে পরিণত হয়েছে প্রশস্থ একটি লেকে। লেকের ওপর আপনি দেখতে পাবেন ভাসমান বাগান। এই বাগানে ফুটেছে ফুল, গাছে টমেটো, মরিচ, কলিফ্লাওয়ার এবং অন্যান্য সবজি। লেকটি সান স্টেটে অবস্থিত, সমুদ্রপৃষ্ঠ হতে ১০০০ মিটার উঁচুতে অবস্থিত।

কালাও
শান রাজ্যের একটি চমৎকার জায়গা কালাও। এই প্রচণ্ড গরমে বেড়ানোর জন্য উপযুক্ত জায়গা এটি। এখান থেকে চমৎকার সব দৃশ্য দেখতে ট্রাকিং করতে পারেন ইনলে লেকের উদ্দেশ্যে বা পিন্ডায়ার দিকে।

ইরাবতী নদী
এশিয়ার দারুণ একটি নদী ইরাবতী। ক্ষরস্রোতা নদীটি অন্য সব নদী থেকে একটু আলাদা এবং খুব চমৎকার সৌন্দর্য্য। নদীর চারপাশের দৃশ্য, সূর্যাস্ত একবার দেখলে মনে থাকবে আজীবন।

এঙ্গয়ে সং বীচ
ইয়াঙ্গুনের কাছে চমৎকার এই বীচটি ঘুরে আসবেন অবশ্যই। ৬ ঘন্টায় পৌঁছে যাবেন ইয়াঙ্গুন থেকে। এই বীচটি ৯ মাইল লম্বা। সাউথ ইস্ট এশিয়ার এটি সবচেয়ে লম্বা বীচ।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: