Sahre Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

‘যৌন নির্যাতনের’ অভিযোগে প্রধান শিক্ষক অবরুদ্ধ, পরে বরখাস্ত


১৮ এপ্রিল ২০১৭ মঙ্গলবার, ১০:৫০  পিএম

শেয়ার বিজনেস24.কম


‘যৌন নির্যাতনের’ অভিযোগে প্রধান শিক্ষক অবরুদ্ধ, পরে বরখাস্ত

দুই ছাত্রীকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে সদর উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের ৬৩ নং বিনোদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এস এম কাওসার মিলনকে (৪৫) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে ওই শিক্ষককে বরখাস্তের আদেশ দেন শরীয়তপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আবুল কালাম আজাদ।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ পেয়ে সদর উপজেলার একজন সহকারী শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে সরেজমিন তদন্ত করি। তদন্তে ঘটনার সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে। তাই প্রধান শিক্ষক এস এম কাওসারকে তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, ওই বিদ্যালয়ে গত তিন মাসে যৌন নির্যাতনের শিকার হয় ৫ম শ্রেণির চারজন এবং ৩য় শ্রেণির একজন ছাত্রী। এ ব্যাপারে গত সোমবার অভিভাবকরা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জিয়াউর রহমানের বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন।

মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা তদন্তে স্কুলে যান সহকারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফারুক আলম। তখন এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষকের অপসারণ ও উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে বিদ্যালয় মাঠে বিক্ষোভ করেন। একপর্যায়ে উত্তেজিত এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষকের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেন। একই সঙ্গে প্রধান শিক্ষককে তার নিজ কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। সেখান থেকে পুলিশ প্রধান শিক্ষককে পালং মডেল থানায় নিয়ে যান।

পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খলিলুর রহমান বলেন, প্রধান শিক্ষক এস এম কাওসার মিলনকে থানায় নেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: