Nahee Aluminum
Share Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

মুক্তিযোদ্ধারা বই লিখলেই প্রকৃত ইতিহাস উঠে আসবে


৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ শনিবার, ০৬:৩৭  পিএম

শেয়ার বিজনেস24.কম


মুক্তিযোদ্ধারা বই লিখলেই প্রকৃত ইতিহাস উঠে আসবে

মুক্তিযোদ্ধারা বই লিখলেই উঠে আসবে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস। জানা যাবে জনযুদ্ধের অজানা অনেক কাহিনী।

কর্নেল (অব.) তৌফিকুর রহমানের লেখা ‘দ্য গেরিলা’স অব ঢাকা-১৯৭১’ এবং এর বাংলা ভার্সন ‘গেরিলা-১৯৭১’ গ্রন্থ দু’টির প্রকাশনা উৎসবে বিশিষ্টজনেরা এ কথা বলেন।

শনিবার সকালে জাতীয় জাদুঘরের মূল মিলনায়তনে বই দু’টির প্রকাশনা উৎসবের আয়োজন করে জাতীয় জাদুঘর।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বইটি নিয়ে আরো আলোচনা করেন সেক্টর কমান্ডার মে. জে. (অব.) কেএম শফিউল্লাহ, বীর উত্তম, লে. কর্ণেল (অব.) সাজ্জাদ হোসেন জহির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সোনিয়া নিশাত ও অধ্যাপক সৈয়দ জামিল আহমেদ। জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরীর সভাপতিত্বে মুক্তিযোদ্ধা ও চলচ্চিত্র নির্মাতা নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু স্বাগত বক্তৃতা প্রদান করেন। লেখক তার অনুভূতি ব্যক্ত করেন।

বইটির মোড়ক উন্মোচন করে অর্থমন্ত্রী বলেন, বইটি তিনি গো-গ্রাসে পড়েছেন। প্রথম লাইন থেকে শেষ লাইন পর্যন্ত পড়েছেন। তিনি বলেন, গ্রন্থটিতে ছোট ছোট কাহিনী ও বিভিন্ন অপারেশনের ঘটনার মাধ্যমে অনেক অজানা মুক্তিযোদ্ধার কথা উঠে এসেছে। এর ফলে অনেক সাহসী, তেজদীপ্ত ও দেশপ্রেমে উজ্জীবিত মুক্তিযোদ্ধা ও কিশোর মুক্তিযোদ্ধার কথা জানা গেছে। যাদের নাম তিনি আগে কখনও শোনেন নি এবং ইতিহাসেও পাননি।

তিনি আরো বলেন, গত ১ বছরে তিনি মুক্তিযুদ্ধের যতগুলো বই পড়েছেন, তার মধ্যে এটিই শ্রেষ্ঠ।

লে. কর্ণেল (অব.) সাজ্জাদ হোসেন জহির জীবিত প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধাকে বই লেখার আহবান জানিয়ে বলেন, আপনারা আপনাদের যুদ্ধের কাহিনী ও অভিজ্ঞতা লিখুন। তাহলে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জাতি জানতে পারবে।

তিনি বলেন, যদি আপনারা লিখতে না পারেন, তাহলে আপনাদের যুদ্ধকালীন কাহিনী সন্তানদের বা নাতি-নাতনীদের বলুন তারা লিখবে। এতে অনেক অজানা কাহিনী জানা যাবে। সঠিক ইতিহাস উঠে আসবে।

অধ্যাপক সৈয়দ জামিল আহমেদ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের কথা যখন আমরা বলি, তখন আমরা ভয়ের ও ব্যর্থতার কথা বলি না। এটা ঠিক নয়। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের যেমন সাফল্যে কথা আছে, তেমনি ব্যর্থতার কথাও আছে। যা এ বইটিতে উঠে এসেছে।

তিনি বলেন, কিছু দল ও ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধকে পণ্য করে ফেলেছিল, কিন্তু এ বইটি পড়ে আমি আবার মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত অনুভূতি উপভোগ করছি।
অধ্যাপক জামিল বলেন, এ বইটিতে মুক্তিযুদ্ধের দাম্ভিক বিষয় যেমন এসেছে, তেমনি এসেছে ভয় ও ব্যর্থতার কথা। আর এ কারণেই বইটিকে মুক্তিযুদ্ধের আকর গ্রন্থ বলা যায়।

নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মকথনের মাধ্যমেই আমরা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে পারি। এ জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের এগিয়ে আসতে হবে। তাদের লিখতে হবে। এতে হয়তো বাড়াবাড়ি ও আবেগ থাকতে পারে, তবে আমরা সঠিক ইতিহাস পাব।

মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক এ গ্রন্থ দু’টি প্রকাশ করেছে সময় প্রকাশন। ২০০ পৃষ্ঠার বাংলা ভার্সনের মূল্য ৩০০ টাকা ও ইংরেজি ভার্সনের মূল্য ৬০০ টাকা।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: