Runner Automobiles
Sea Pearl Beach Resort & SPA Ltd
Share Business Logo
bangla fonts
facebook twitter google plus rss

ব্যাংক খাতের দুরবস্থার কারণ


১৫ জুন ২০১৯ শনিবার, ০২:০৫  পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক


ব্যাংক খাতের দুরবস্থার কারণ

সারা বিশ্বে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ হয় পুঁজিবাজার থেকে। আর দেশের ব্যাংক খাত স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি উভয় বিনিয়োগ করে থাকে। এখানেই ব্যাংক খাতের বড় সমস্যা। ব্যাংক খাতের কাজ হচ্ছে স্বল্পমেয়াদি বিনিয়োগ করা। দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের কারণে ব্যাংক খাতের আজ এ অবস্থা। কারণ কয়টি দীর্ঘমেয়াদি খাত ২৫ শতাংশের ওপর লাভ করে? অনেকে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে ফেরত দেয় না। সম্প্রতি এনটিভির মার্কেট ওয়াচ অনুষ্ঠানে বিষয়টি আলোচিত হয়। আহমেদ রশীদ লালীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এবিবির সাবেক সভাপতি নুরুল আমিন এবং কনস্টেলেশন অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান হাসান মাহমুদ বিপ্লব।

নুরুল আমিন বলেন, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের জন্য বড় বাজেট ঘোষণা হয়েছে। আর এ বাজেট নিয়ে অনেক প্রত্যাশা সবার। আশা করি, অবশ্যই এ বাজেট ব্যবসাবান্ধব, সংস্কারমুখী এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নমুখী হবে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে, এ বাজেটে যেন ধনী-গরিবের বৈষম্য দূর করার প্রচেষ্টা থাকে। তবে এ বাজেটে ঘাটতির পরিমাণ গত বছরের চেয়ে বেশি হবে। গত বছর ঘাটতির পরিমাণ ছিল এক লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা। এবার ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় এক লাখ ৪৫ হাজার কোটি টাকা। তবে ঘাটতি বাজেট উন্নয়নশীল দেশের জন্য ভালো। ব্যাংক খাত বর্তমানে অস্থিরতার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এখানে ব্যাংক খাত নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। বিশেষ করে আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে খেলাপি ঋণ আদায়, তারল্য সংকট প্রভৃতি বিষয়ে। তাই ব্যাংক খাতে কীভাবে উন্নয়ন করা যায় এবং কীভাবে সুশাসন ফিরিয়ে আনা যায় এ বিষয়গুলো বাজেটে উঠে আসবে।

তিনি আরও বলেন, দেশে রাষ্ট্রীয় ও বেসরকারি অনেকগুলো ব্যাংক রয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগ ব্যাংক খারাপ অবস্থানে এবং তারল্য সংকটের মধ্যে রয়েছে। তবে কিছু ভালো ব্যাংক করছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত দেশের কোনো ব্যাংক আন্তর্জাতিক মানের হতে পারেনি। দেশে জিডিপির গ্রোথ আট শতাংশ এবং বেসরকারি বিনিয়োগ ২৮ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের আশা ব্যক্ত করেছে। কথা হচ্ছে যেখানে বেসরকারি বিনিয়োগ ২৩ শতাংশ অতিক্রম করতে পারেনি এবং গত পাঁচ বছর ধরে ২২ শতাংশের মধ্যে রয়েছে। ব্যাংক খাত দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ব্যাংক খাতে যদি এ অবস্থা বিরাজ করে তাহলে উন্নয়নের যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে সেখানে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে। রাষ্ট্রীয় ব্যাংকে খেলাপি ঋণের পরিমাণ প্রায় ৫০ শতাংশ আর বেসরকারি ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ সাত শতাংশের মধ্যে। আসলে ব্যাংক পরিচালনায় দক্ষতার অভাব রয়েছে। তবে ব্যাংক খাতে বড় সংস্কার দরকার।

হাসান মাহমুদ বিপ্লব বলেন, প্রায় দেশে চার কোটি লোকের কর প্রদানের যোগ্যতা রয়েছে। আর চার কোটি লোকের মধ্যে মাত্র ২০ লাখ লোক কর দিচ্ছে। অর্থমন্ত্রী বলেছেন এবার এক কোটি লোককে কর প্রদানের আওতায় আনবেন এবং কর প্রদানের হার কমাবেন। তবে এটি চার বছরের পরিকল্পনা। এডিবি ও ওয়ার্ল্ড ব্যাংক বলেছে, আগামী ৩০ বছরের মধ্যে বাংলাদেশে চার কোটি লোককে কর প্রদানের আওতায় আনা হবে। এটা কিন্ত দেশের জন্য বড় বিষয়।

তিনি আরও বলেন, সারা বিশ্বে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ হয় ক্যাপিটাল মার্কেট থেকে। আর দেশের ব্যাংক খাত স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি উভয় বিনিয়োগ করে থাকে। এখানেই ব্যাংক খাতের বড় সমস্যা। ব্যাংক খাতের কাজ হচ্ছে স্বল্পমেয়াদি বিনিয়োগ করা। দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের কারণে ব্যাংক খাতের আজ এ অবস্থা। কারণ কয়টি দীর্ঘমেয়াদি খাত ২৫ শতাংশের ওপর লাভ করে। অনেকে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে টাকা ফেরত দেয় না। আবার পুঁজিবাজার শুধু ইকুইটিনির্ভর। বাজারকে সম্প্রসারিত করতে হলে বিভিন্ন ধরনের পণ্য বাড়াতে হবে এবং ভালো মানের ইকুইটি আনতে হবে।

শেয়ারবিজনেস24.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: